June 14, 2024, 10:03 am
শিরোনাম:
মনোহরদীতে দিনব্যাপী পাট চাষী প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত মনোহরদীতে মাদ্রাসা শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রকে বেধরক মারধরের অভিযোগ মনোহরদীতে জনমত জরিপ ও প্রচার-প্রচারণায় এগিয়ে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী তৌহিদ সরকার মনোহরদীতে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী “আলোকিত গোতাশিয়া” ফেসবুক গ্রুপের পক্ষহতে ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ মনোহরদীতে অসহায়দের মাঝে শিল্পমন্ত্রীর ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ মনোহরদীতে ব্রহ্মপুত্র নদী থেকে বালু উত্তোলনের দায়ে খননযন্ত্র ও বালুর স্তুপ জব্দ এতিম শিশুদের নিয়ে ইফতার করলেন মনোহরদীর ইউএনও হাছিবা খান ঢাকা আইনজীবী সমিতির কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচনে বিজয়ী মনোহরদীর সন্তান এ্যাড.কাজী হুমায়ুন কবীর মনোহরদীতে ব্রক্ষ্মপুত্র নদীতে অভিযান ১০টি ম্যাজিক জাল জব্দ

গণতন্ত্রের রক্ষাকবজ হিসাবে​ গণমাধ্যম ধারালো হাতিয়ার – সোহেল সানি

সিনিয়র কলামিস্ট সোহেল সানি
  • আপডেটের সময় : বুধবার, মে ২৬, ২০২১
  • 967 দেখুন

“সংবাদপত্র শিল্প আর দশটা সাধারণ শিল্পের মতো নয়, পণ্য তৈরি করিলেই বাজারে বিক্রয় হইয়া যায়; কিন্তু সংবাদপত্রকে জনমতের বাহন হইয়া বাঁচিয়া থাকিতে হয়।”

উক্তিটি সাংবাদিকতার পথিকৃৎ তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার।তিনি লিখেছেন, “দেশে দেশে যুগে যুগে সংবাদপত্রের উপর অসহিষ্ণু শাসকবর্গ হামলা করিয়াছেন এবং শেষ পর্যন্ত সংবাদপত্রই জয়যুক্ত হয়েছে।.. যাঁরা ইতিহাসের অমোঘ শিক্ষা উপেক্ষা করিয়া সংবাদপত্রের বিরুদ্ধে মধ্যযুগীয় আচরণে লিপ্ত হইয়াছেন, তাহাদের প্রতি আমার অনুকম্পা প্রকাশ করিতে হয়।”
সত্যিই এই পুরুষসিংহ শাসকদের অনুকম্পাই প্রদর্শন করতেন। তা নাহলে যে অর্ডিনান্সের খবরও সংবাদপত্রে ছাপানো নিষিদ্ধ ছিল, সেই তার বিরুদ্ধেই ওই ভাষায় “রাজনৈতিক মঞ্চ” -এর কলাম কি করে লিখতেন?
ফরাসি বিপ্লবোত্তর অরাজকতা লক্ষ্য করে এক মনীষী আক্ষেপ করে লিখেছিলেন, “Liberty, what crimes are being committed in thy name!”- স্বাধীনতা, তোমার নামে কত অপরাধই না অনুষ্ঠিত হচ্ছে! আমাদের বাংলাদেশের স্বাধীনতা সুবর্ণজয়ন্তী পার করেছে।

তবুও চারদিকে অবক্ষয়, সমাজজীবনের এমন কোন ক্ষেত্র নেই যেখানে অবক্ষয় ভয়াবহ রূপে নেই। পুরানো সব মূল্যবোধ এখন নিশ্চিহ্ন, নতুন কোন মূল্যবোধও দুর্নিরীক্ষ্য- যে মূল্যবোধে স্বাস্থ্য আর শালীনতার লক্ষণ রয়েছে। একধরনের সরকারি উন্নয়নের চাঞ্চল্য সর্বত্র দেখা যায় সত্য কিন্তু তাকে প্রাণচাঞ্চল্য নামে অভিহিত করা যায় না। এ যেন মরণের আগে হাত-পা ছোঁড়া। কেননা উন্নয়ন হয়নি রাজনীতির, ভবিষ্যত নেতৃত্বের। এই সময়ে বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতিতে মানিক মিয়া থাকলে তিনি যুক্তির খড়াগাঘাতে ছিন্ন ভিন্ন করে দিতে পারতেন মিথ্যাকে।

আবুল মনসুর আহমদের ভাষায়,”আমরা একবার সকলে মিলে জোর করে মানিক মিয়াকে আওয়ামী লীগ ওয়ার্কিং কমিটির মেম্বর করেছিলাম। বছর না ঘুরতেই তিনি বললেন, ভেতরের চেয়ে বাইরে থেকেই আওয়ামী লীগের বেশী খেদমত করতে পারবেন। করেছেনও তিনি। আমরণ আওয়ামী লীগের এমন খেদমত যার তুলনা হয় না। শুধু আওয়ামী লীগ নয়, গোটা জাতি, সারাদেশ, শুধু পূর্ব পাকিস্তান নয়, গোটা পাকিস্তান তাঁর কাছে ঋণী। তাঁর অবদান এতো মূল্যবান ছিল যে, ইচ্ছা করলেই মন্ত্রী বা আওয়ামী লীগের পদাধিকারী হতে পারতেন। কিন্তু সেদিকে তাঁর নজর ছিল না”

তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার মতো আবুল মনসুর আহমদও বেঁচে নেই। বেঁচে আছে তাঁদের কথা। যেখানেই সাংবাদিকতার নিরঙ্কুশ স্বাধীনতা ক্ষুন্ন, সেখানেই তাঁরা আরও বেশী স্মরণীয়। ঠিক সেরূপ, যেখানে গণতন্ত্রের স্বার্থ বিপন্ন, জনগণের স্বার্থ বিপর্যস্ত, সে বিপদ ও বিপর্যয় শাসকদের ইচ্ছাতেই হোক আর অনিচ্ছাতেই হোক, তাঁদের অভাব সেখানেই তীব্রভাবে অনুভূত। গণতন্ত্রের রক্ষাকবজ ও ধারালো হাতিয়ার যে সংবাদপত্র বা গণমাধ্যম, সেই সত্যকে আপাততঃ স্বীকার করে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে সরকার মুক্তি দিয়েছে- এটা আমরা অন্ততঃ ধরে নিতে পারি। গণতন্ত্রই যাঁদের শক্তি-উৎস, তাঁদের হাতে গণতন্ত্র বিপন্ন হবেই বা কেন?
গণতন্ত্রের রক্ষাকবজ ও ধারালো হাতিয়ার যে সংবাদপত্র, সেই সংবাদপত্রও অতীতে রেজিমেন্টড হয়েছে। বাক-স্বাধীনতা চাটুকারিতায় নিয়োজিত হয়েছে। আমাদের দেশের সমস্যার ও জনগণের দুর্দশার অন্ত নেই। কিন্তু বেশীরভাগই কৃত্রিম ও আমাদের নিজ হাতে তৈরী। শাসক-পরিচালকদের ভুল-ভ্রান্তির জন্য এসব ঘটে। আমাদের জাতীয় জীবনের দুটা প্রধান দিক রাজনীতি ও ​ সাংবাদিকতা। আজ দেশে-সমাজে, রাজনীতিতে-অর্থনীতিতে, সাহিত্যে- সাংবাদিকতায়, বিদ্যালয়ে-মন্ত্রণালয়ে যা যা ঘটছে, মনে হয় মানিক মিয়ারা বেঁচে থাকলে এসব ঘটতে পারতো না। এই দুটা দিকেই মানিক মিয়া জীবদ্দশায় ছিলেন অনন্য ও অতুলনীয়। মৃত্যুর পরেও তাঁর স্থলবর্তী জন্মেনি। সাংবাদিকতায় ছিলেন মিশনারি আর রাজনীতিতে স্টেটসম্যান। এটাই ছিল তাঁর প্রভাবের গূঢ়তত্ত্ব।

শহীদ সোহরাওয়ার্দীর কাছ থেকেই বঙ্গবন্ধু আর মানিক মিয়ারা আত্মস্থ করেছিলেন দেশপ্রেম, রাজনৈতিক আদর্শবাদ, দুর্জয় সাহস, অমিত তেজ, বেপরোয়া ত্যাগ, স্বচ্ছ চিন্তা, সবল যুক্তি, কুশল-প্রকাশভঙ্গী এবং গণতান্ত্রিক সহিষ্ণুতা -সবই। তাঁদের মতো সামরিক স্বৈরাচারের সামনে উন্নত মস্তকে দাঁড়িয়ে জনগণের অধিকারের কথা বলতে বুকের পাটা খুব কম লোকই দেখিয়েছেন।

“আমাদের বাঁচার দাবি” ছয়-দফার সমর্থনে ১৯৬৬ সালের ৭ জুনের বিপ্লবে মানিক মিয়া ও তাঁর ইত্তেফাকের মতো সার্বিক ত্যাগ স্বীকার খুব কম নেতা ও সংবাদপত্রকেই করতে হয়েছে। মানিক মিয়া ও ইত্তেফাকের ওপর আইয়ুব খানের জুলুমের নজির দুনিয়ার দ্বিতীয়টি নেই। আবুল মনসুর আহমদের ভাষায় “বস্তুত জনগণের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অধিকার আদায়ের সংগ্রামে সাংবাদিকদের ত্যাগ ব্যাপকতায়, সামগ্রিকতায় ও মহিমা-মর্যাদা অপরিসীম। আমরা যাঁরা সমানে জেল-জুলুম সয়েছি, তাঁরা শুধু শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনে ভুগেছি। মানিক মিয়ার মতো সম্পত্তি ধ্বংস -বাজেয়াপ্ত হয়নি আমাদের আর কারো। এতসব করেও ডিক্টেটররা মানিক মিয়াকে আদর্শচ্যুত করতে পারেনি।

যে গণ-দাবির সমর্থন করার অপরাধে ইত্তেফাক শাসকদের শ্যেনদৃষ্টির শিকার হয়েছিল, মাত্র তিন বছরেরই ছাত্রজনতার সংগ্রামের সামনে আইয়ুব শাহীর পরাজয় ঘটে। ষড়যন্ত্রমূলক কুখ্যাত আগরতলা মামলারও অবসান ঘটে। যা ছিল জঙ্গি ডিক্টেটর আইয়ুবের কুখ্যাত “সিভিল ওয়ার” ও আর্গুমেন্ট অব ওয়েপনের” দর্প ও দম্ভের প্রথম নমুনা।

রাজনীতিবিদ আবুল মনসুর আহমেদ তাই লিখেছেন, “জালিমশাহীর নমরুদী আক্রোশে যে বঙ্গবন্ধুকে পুড়িয়ে মারার উদ্দেশ্যে নির্যাতনের অগ্নিকুণ্ডে নিক্ষেপ করেছিল সে আগুনের লক্-লকা জিভ ও উৎকীর্ণ স্ফুলিঙ্গ ইব্রাহিম নবীর কুসুমস্তবকের সুষমা ও সৌরভ নিয়ে ‘ইত্তেফাকের’ ফুলাসন ও পুষ্পমাল্যে রূপান্তরিত হয়েছিল। বাংলাদেশে সাংবাদিকদের গণমাধ্যমের স্বাধীনতার শক্তিধর ডিফেন্ডার হতে হলে পূর্বসূরি মানিক মিয়াদের জীবনাদর্শ থেকে শিক্ষা গ্রহণের বিকল্প নেই। গণতন্ত্রই মানবাধিকারের সর্বশ্রেষ্ঠ রক্ষাকবজ। সীমাহীন শক্তির অধিকার মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সেদেশের সংবাদপত্রগুলো কিভাবে লড়াই করে গণতন্ত্রের মর্যাদা রক্ষা করছেন, এটা দেখে আমাদের সাংবাদিকদের সঙ্কল্পবদ্ধ হতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

https://bd24news.com © All rights reserved © 2022

Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102