February 23, 2024, 1:23 am
শিরোনাম:
মনোহরদীতে শীতার্তদের মাঝে মন্ত্রীপুত্রের শীতবস্ত্র বিতরণ মনোহরদীতে পাট চাষীদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত কক্সবাজারে অর্থের বিনিময়ে মেহেদী পত্রিকার বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ প্রচারের কলেজ ছাত্র সোহেল কে হয়রানির অভিযোগ মনোহরদীতে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ছয় লাখ টাকা জরিমানাসহ গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে ইটভাটা মনোহরদীতে মন্ত্রীপুত্রকে ফাঁসাতে মিথ্যা নাটক সাজানোর প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদকের বিরুদ্ধে মানববন্ধন অবৈধভাবে ইটভাটা পরিচালনা ও মাটি কাটার অপরাধে ৪ জনকে কারাদণ্ডসহ ৫ লক্ষ টাকা অর্থদণ্ড, এক্সক্যাভেটর আটক ফেসবুকে ভিডিও ভাইরাল, ইউপি চেয়ারম্যান কর্তৃক নৌকার ভোটারদের কেন্দ্রে প্রবেশে বাধা মনোহরদীতে দরিদ্র শিক্ষার্থীদের মাঝে পোশাক বিতরণ মনোহরদীতে শীতার্তদের মাঝে ইউএনও র শীতবস্ত্র বিতরণ মনোহরদীতে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন “আমরা মনোহরদীর সন্তান” এর ১যুগ পূর্তি উদযাপন

গভীর রাতে মায়ের হাতে ধরা শ্যালিকা-দুলাভাই, অতঃপর গলা কেটে হত্যা

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেটের সময় : বুধবার, আগস্ট ৫, ২০২০
  • 407 দেখুন

সৌদি প্রবাসী বড় মেয়ের জামাই ছোট মেয়ের সাথে অবৈধ সম্পর্ক দেখে ফেলায় হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলায় ছালেমা বেগমকে (৪৫) গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব তথ্য জানান শ্যালিকা ও দুলাভাই।

বুধবার (০৫ আগস্ট) দুপুরে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ উল্ল্যা।এসপি মোহাম্মদ উল্ল্যা বলেন, উপজেলার করগাঁও গ্রামের হিরন মিয়ার স্ত্রী ছালেমা বেগম সাত সন্তানের জননী। স্বামী আরেকটি বিয়ে করে অন্যত্র বসবাস করেন।

মেয়ে জেসমিন আক্তার শান্তিকে নিয়ে একই গ্রামের ভাগনে আব্দুর রহমানের বাসায় বসবাস করেন ছালেমা। বড় মেয়ে জেসমিন আক্তারকে একই গ্রামের মোগল মিয়ার কাছে বিয়ে দেন। বিয়ের কিছুদিন পর জেসমিন সৌদি আরবে চলে যান।

তখন থেকে মোগল মিয়া শাশুড়ির সঙ্গে বসবাস করেন। এর মধ্যেই শ্যালিকা জেসমিন আক্তার শান্তির সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়েন মোগল মিয়া। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে তাদের একাধিকবার সতর্ক করেন ছালেমা বেগম। ঈদুল আজহার দিনগত রাত দেড়টার দিকে সবাই ঘুমিয়ে থাকার সুযোগে শ্যালিকার রুমে যান মোগল মিয়া। সেখানে শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন তারা। ঘুম ভেঙে গেলে ছোট মেয়ের ঘরে গিয়ে মেয়ে ও জামাইকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পান ছালেমা।

এ সময় তিনি চিৎকার করেন। তাৎক্ষণিক ছালেমা বেগমের মুখ চেপে ধরেন তারা। এতেও দমাতে না পেরে ঘরে থাকা দা দিয়ে শাশুড়ির গলা, বুক ও ঘাড়ে একাধিক কোপ দেন মোগল মিয়া। এ সময় মেয়ে শান্তি মায়ের পা চেপে ধরেন। মৃত্যু নিশ্চিত করে মোগল মিয়া শ্যালিকাকে বলেন আমি চলে যাওয়ার পর ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার দেবে।

এরপর প্রতিবেশী আব্দুল মুমিন ওরফে রুমান এবং নোমান এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে প্রচারণা চালিয়ে দেবে। পরিকল্পনা অনুযায়ী শান্তি নিজের রক্তমাখা জামা বদলে তাই করেন। তার চিৎকারে লোকজন ছুটে আসেন। পরদিন মেয়ের বক্তব্য শোনে মুমিন ও রুমানের নামে মামলা করেন নিহতের স্বামী। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত হন নবীগঞ্জ থানা পুলিশের এসআই মো. আবু সাঈদ। তিনি ঘরে তল্লাশি চালিয়ে মোগল মিয়া ও শান্তির রক্তমাখা জামা-কাপড় উদ্ধার করেন।

পরবর্তীতে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন শ্যালিকা ও দুলাভাই।

মঙ্গলবার (০৪ আগস্ট) সন্ধ্যায় হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তৌহিদুল ইসলামের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তারা। এ সময় হত্যার রোমহর্ষক বর্ণনা দেন শ্যালিকা ও দুলাভাই।

নিউজ২৪//

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

https://bd24news.com © All rights reserved © 2022

Design & Develop BY Coder Boss
themesba-lates1749691102